অসম আদিত্য - দেশ-জাতিৰ অতন্দ্ৰ প্ৰহৰী
শেহতীয়া খবৰ
পাকিস্তানৰ বিখ্যাত আনাৰকলি বজাৰ অঞ্চলত বোমা বিস্ফোৰণ-পদ্মশ্ৰী উদ্ধাৱ কুমাৰ ভৰালীৰ আত্মসমৰ্পণ-গণৰাজ্য দিৱস সমাগত, খাদী বৰ্ডৰ একাংশ কৰ্মচাৰী ব্যস্ত হৈ পৰিছে ৰাষ্ট্ৰীয় পতাকা সাজি উলিওৱাত-অসম চৰকাৰে কোভিড আক্ৰান্তৰ বাবে সংশোধিত গাইড লাইন জাৰি কৰিছে-অসম চৰকাৰে কোভিড আক্ৰান্তৰ বাবে সংশোধিত গাইড লাইন জাৰি কৰিছে-চীনে কৃত্ৰিম সূৰ্যৰ পিছত এতিয়া নকল চন্দ্ৰ (Artificial Moon) নিৰ্মাণ কৰিছে-বুজন সংখ্যক লোকক এতিয়া বিচাৰি ভেকচিন দিয়াটো হৈ পৰিছে স্বাস্থ্য বিভাগৰ কাৰণে ডাঙৰ প্ৰত্যাহ্বান-বুজন সংখ্যক লোকক এতিয়া বিচাৰি ভেকচিন দিয়াটো হৈ পৰিছে স্বাস্থ্য বিভাগৰ কাৰণে ডাঙৰ প্ৰত্যাহ্বান-দেশত কোৰোণাত আক্ৰান্তৰ সংখ্যা দিনক দিনে বৃদ্ধি পাইছে-নামনিৰ ৰে’ল যোগাযোগৰ ক্ষেত্ৰত আজি এক ঐতিহাসিক দিন

প্রো কাবাডি লিগ সিজন -৮ আগামী ২২ শে ডিসেম্বর থেকে উদ্যান নগরী বেঙ্গালুরুতে শুরু হচ্ছে

0

ভিভো প্রো কাবাডি লিগ সিজন -৮ আগামী ২২ শে ডিসেম্বর থেকে উদ্যান নগরী বেঙ্গালুরুতে শুরু হচ্ছে। সরকারের জারি করা কোভিড বিধি মেনে একটি ভেনুতেই দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে সিজন ৮ এর কাবাডি লিগ আয়োজিত হচ্ছে। খেলোয়াড়রা যাতে পুরোপুরি সুরক্ষিত থাকেন সেজন্য জৈব সুরক্ষা বলয়ের পাশাপাশি কোভিড পরীক্ষার উপরও এবার জোর দেওয়া হবে বলে লিগ আয়োজকদের তরফে জানানো হয়েছে। করোনার কারণেই গতবছর প্রো কাবাডি লিগ আয়োজন করা হয়নি।সপ্তম সিজনে অংশগ্রহণকারী ১২ টি দলই এবারেও অংশগ্রহণ করছে।

গত সিজনের বিজয়ী বেঙ্গল ওয়ারিয়ার্সের উপর বাংলার কাবাডিপ্রেমীদের প্রত্যাশা বেড়ে গেছে। সিজন ৮ এও তারা সেরার দৌড়ে থাকবে তা বলাই বাহুল্য। গত সিজনের বিজয়ী দলের প্রধান সদস্যদের তারা ধরে রেখেই এবার মাঠে নামছে ওয়ারিয়ার্স। গতবারের অধিনায়ক ও মুখ্য রেডার মনিন্দার সিং, গতবারের ফাইনালের সর্বোচ্চ স্কোরার ইরানের অলরাউন্ডার ইসমাইল নবিবক্স, রক্ষণে রিঙ্কু নারওয়াল, রেডার রবীন্দ্র রমেশ কুমায়েতকে এবারও দলে রয়েছেন। নিলামের পর দলে এসেছেন ইরানের ডিফেন্ডার আবোজার মহাজেরমিঘানি যা রক্ষণকে শক্তিশালী করবে বলে মনে করা হচ্ছে।

ইউপি যোদ্ধা টিম থেকে রিসাংক দেবাদিগাকে নেওয়ার ফলে অধিনায়ক মনিন্দরের গায়ের জোর, দেবাদিগার গতি ও অলরাউন্ডার নবিবক্সের রেডার হিসেবে দক্ষতা বিপক্ষের রক্ষণকে পরীক্ষার মধ্যে ফেলবে। ২০১৭ সাল থেকে কাবাডি লিগে অংশগ্রহণকারী  ইউ পি যোদ্ধা এখনো পর্যন্ত খেতাবের মুখ দেখেনি। কিন্তু পাটনা পাইরেটস এর তিনবার কাবাডি লিগ জয়ের মূল কারিগর টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা রেডার পারদীপ নারওয়াল তাদের দলে আসায় ইউ পি যোদ্ধা শক্তিশালী হবে তা মনে করছেন টিম ম্যানেজমেন্ট।

শ্রীকান্ত যাদবের সঙ্গে তার রেডিং এর জুটি বিপক্ষকে চাপে ফেলবে। নীতিশ কুমার, সুমিত ও আশু সিং এর রক্ষণ গত সিজনে ভালো পারফরমেন্স দেওয়ায় এবারও তারা আশানুরূপ খেলা দেখাবে মনে করছে টিম ম্যানেজমেন্ট।

দ্বিতীয় সিজনের চ্যাম্পিয়ন ইউ মুম্বা এবার অনেক নতুন প্রতিভাদের এবার সুযোগ দিচ্ছে। তাদের উপর অনেকটা ভরসা করেই বৈতরণী পার হতে চাইছে মুম্বাই। ইরানের ডিফেন্ডার ফাজেল আত্রাচেলির উপরই মুম্বাই অনেকটা নির্ভর করছে। অভিষেক সিং ও তামিল থালাইভার থেকে নেওয়া ভি অজিত কুমার রেডারে মুম্বইয়ের ভরসা।

তিনবারের বিজয়ী দল পাটনা পাইরেটস এবার অনেক নতুন মুখদের নিয়ে দল সাজিয়েছে। রেডার অংশ শক্তিশালী হলেও, রক্ষনে নতুন যুবকদের উপর ভরসা করছে দল। সচিন তানওয়ার, প্রশান্ত কুমার রায়কে রেডার হিসেবে এবছর নিলামে তারা বহু অর্থ খরচ করে কিনেছে। চারজন বিশ্বমানের রেডার এই দলে রয়েছে। অলরাউন্ড দক্ষতার জন্য ইরানের খেলোয়াড় চিয়ানেকে এবারের নিলামে সর্বোচ্চ অর্থ দিয়ে কিনেছে পাইরেটস।

তেলেগু টাইটেন্স এবার রেডার ও রক্ষণ দুই দিককেই শক্তিশালী করার চেষ্টা করেছে। সিদ্ধার্থ দেসাই ও রোহিত কুমার তাদের রেডার টিমের নেতৃত্ব দেবে। রক্ষনে সন্দীপ কাণ্ডলা বিপক্ষ রেডারদের কাছে দেওয়াল হয়ে দাঁড়াতে পারেন। এর পাশাপাশি যুব খেলোয়াড়দের উপরও ভরসা রাখছে দল।

খ্যাতনামা কাবাডি খেলোয়াড় অনুপ কুমারের কোচিং এ রেডার রাহুল চৌধুরী, নীতিন তোমার, রক্ষণে বিশাল ভরদ্বাজ ও বলদেব সিং এর নেতৃত্বে একঝাঁক তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়ে প্রথমবার কাবাডি লিগ জিততে মাঠে নামছে পুনেরি পাল্টান।

গত কয়েক মরসুমে খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য লিগ টেবিলে নিচের দিকে থাকার ফলে এবার পুরোপুরি নতুন দল মাঠে নামিয়ে কিস্তিমাত করতে চাইছে তামিল থালাইভাস। রক্ষণে পিও সুরজিৎ সিং ও রেডারে মনজিত ও কে প্রাপনজনের উপরই তারা ভরসা করছে এবার। রেডার ও রক্ষণ দুই দিকেই তরুণদের উপর আস্থা দেখিয়েছে থালাইভাস।

গতবারের রানার্স দাবাং দিল্লি এবার সব দিকেই দক্ষ খেলোয়াড়দের নিয়ে বৈতরণী পার হতে চাইছে। যোগিন্দর নারওয়ালের নেতৃত্বে রেডারে নবীন কুমার গয়াত, অজয় ঠাকুর, নীরজ নারওয়াল, সুশান্ত সেল, রক্ষণে জিভা কুমার, মহম্মদ মালিক ও অলরাউন্ডার হিসেবে সন্দীপ নারওয়াল ও মনদীপ চিল্লার এবার তাদের খেতাবের মুখ দেখাবে বলে আশাবাদী দাবাং দিল্লি টিম ম্যানেজমেন্ট।

ষষ্ঠ সিজনের চ্যাম্পিয়ন ব্যাঙ্গালোর বুলস এর আক্রমণভাগ রক্ষণের তুলনায় ভারী। পবন শেরাওয়াত, চন্দ্রণ রঞ্জিত ও দীপক নারওয়াল তাদের রেডার হিসেবে থাকছে, রক্ষণ তরুণ খেলোয়াড়দের হাতে।

হরিয়ানা স্টিলার্স সিজন ৮ এর নিলামে তারুণ্যের উপরই জোর দিয়েছে। অলরাউন্ডার রোহিত গুলিয়া ও ব্রিজেন্দ্র সিং চৌধুরী তাদের তারকা খেলোয়াড়। নির্দিষ্ট কোনো পজিশনের জন্য খেলোয়াড় নয় ডিফেন্সের পাশাপাশি রেডিং এও দক্ষতা দেখাতে পারেন এমন খেলোয়াড়দের উপরই ভরসা রাখছে স্টিলার্স। অভিজ্ঞ রাজেশ নারওয়ালের অলরাউন্ড দক্ষতা নতুনদের সাথে নিয়ে দলকে সাফল্য এনে দেবে এমনটাই দাবি স্টিলার্স টিম ম্যানেজমেন্টের।

প্রো কাবাডি লিগের প্রথমবারের বিজয়ী জয়পুর পিঙ্ক প্যান্থার্স তাদের ধরে রাখা তারকা খেলোয়াড়দের সঙ্গে , নিলামে কেনা তরুণ খেলোয়াড়দের সংমিশ্রণ ঘটিয়ে চমক দিতে চাইছে বিপক্ষকে। উদীয়মান রেডার অর্জুন দেশওয়াল, নবীন ও অভিজ্ঞ ধর্মরাজ চিরল্থনের উপর তারা অনেকটাই ভরসা করছে।

দুবার ফাইনাল খেলা গুজরাট জায়ান্টস তাদের রক্ষণকেই শক্তিশালী করেছে, বিপক্ষের রক্ষণকে মাত করার জন্য তরুণ রেডারদের উপরই আস্থা রেখেছে। সুনীল কুমার, পারভেজ ভাইনশল তাদের রক্ষণের স্তম্ভ। রক্ষণকে শক্তিশালী করতে দাবাং দিল্লি থেকে রবিন্দর পাহালকে ৭৪ লক্ষ টাকার বিনিময়ে নিয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.