অসম আদিত্য - দেশ-জাতিৰ অতন্দ্ৰ প্ৰহৰী
শেহতীয়া খবৰ
পাকিস্তানৰ বিখ্যাত আনাৰকলি বজাৰ অঞ্চলত বোমা বিস্ফোৰণ-পদ্মশ্ৰী উদ্ধাৱ কুমাৰ ভৰালীৰ আত্মসমৰ্পণ-গণৰাজ্য দিৱস সমাগত, খাদী বৰ্ডৰ একাংশ কৰ্মচাৰী ব্যস্ত হৈ পৰিছে ৰাষ্ট্ৰীয় পতাকা সাজি উলিওৱাত-অসম চৰকাৰে কোভিড আক্ৰান্তৰ বাবে সংশোধিত গাইড লাইন জাৰি কৰিছে-অসম চৰকাৰে কোভিড আক্ৰান্তৰ বাবে সংশোধিত গাইড লাইন জাৰি কৰিছে-চীনে কৃত্ৰিম সূৰ্যৰ পিছত এতিয়া নকল চন্দ্ৰ (Artificial Moon) নিৰ্মাণ কৰিছে-বুজন সংখ্যক লোকক এতিয়া বিচাৰি ভেকচিন দিয়াটো হৈ পৰিছে স্বাস্থ্য বিভাগৰ কাৰণে ডাঙৰ প্ৰত্যাহ্বান-বুজন সংখ্যক লোকক এতিয়া বিচাৰি ভেকচিন দিয়াটো হৈ পৰিছে স্বাস্থ্য বিভাগৰ কাৰণে ডাঙৰ প্ৰত্যাহ্বান-দেশত কোৰোণাত আক্ৰান্তৰ সংখ্যা দিনক দিনে বৃদ্ধি পাইছে-নামনিৰ ৰে’ল যোগাযোগৰ ক্ষেত্ৰত আজি এক ঐতিহাসিক দিন

মোদি সরকারের বড় সিদ্ধান্তে কিলো প্রতি ভোজ্য তেল সস্তা

0

লাগাতার জিনিসপত্রের দাম ক্রমশই লাগামছাড়া হচ্ছে, এই বেলাগাম মুদ্রস্ফীতির মাঝেই গ্রাহকদের জন্য বড় খবর ৷ জানতে পারা যাচ্ছে দেশভর খুচরো ভোজ্য তেলের দাম কমছে কিলো প্রতি ২০ টাকা সস্তা হয়েছে রান্নার তেল ৷ কেন্দ্রর পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে যে আন্তর্জাতিক বাজারে দ্রব্যমূল্যের আকাশছোঁয়া দাম হওয়া সত্ত্বেও কেন্দ্রীয় সরকারের (Effective steps of Modi Government) প্রচেষ্টায় ভোজ্য তেলের দাম লাগাতার ভাবে কমে যাচ্ছে ৷ 

কেন্দ্রের উপভোক্তা মন্ত্রালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ১৬৭ কালেকশন ট্রেড সেন্টারের অন্তর্গত সারা দেশের বিভিন্ন বাজারে ভোজ্য তেলের দাম ৫ টাকা থেকে ২০ টাকা পতন হয়েছে ৷ এই গড় অনুযায়ী বলা যেতে পারে যে বাদাম তেলের দাম কিলো প্রতি (খুচরো মূল্য ১৮০ টাকা) ৷

সরষের তেলের দাম ১৮৪.৫৯ টাকা ৷ 

সয়াবিন অয়েল কিলো প্রতি দাম ১৪৮.৮৫ টাকা ৷

অন্যদিকে খুচরো বাজারে কিলো প্রতি সূর্যমুখীর তেলের দাম ১৬২.৪ টাকা ৷

Crude sunflower oil unrefined

 পাম তেলের দাম ১২৮.৫০ টাকা প্রতি কিলো ৷

খাদ্যমন্ত্রকের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আডানি ইউলমার, রুচি-সহ প্রমুখ ভোজ্য তেলের খুচরো দাম কিলো প্রতি ৫-২০ টাকা সস্তা হয়েছে ৷ এছাড়াও সমস্ত প্রথম সারির ভোজ্য তেল প্রস্তুতকারি সংস্খা রান্নার তেলের দাম কমিয়েছে ৷ কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে ভোজ্য তেলের দামে (edible Oil Price checked) রাশ টানতে সর্বপ্রথম ইম্পোর্ট ডিউটি কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে মোদি সরকার ৷ এছাড়াও কার্ভ হোর্ডিং, স্টক লিমিট-সহ বহু ক্ষেত্রেই ঘরোয়া ভাবে কমানো হয়েছে রান্নার তেলের দাম ৷ ভারত সব থেকে বেশি ভোজ্য তেলের আমদানিকারক ৷ দেশে প্রয়োজনের প্রায় ৫০-৬০ শতাংশ রান্নার তেল বাইরে থেকে আমদানি করে ৷ আমদানিজাত দ্রব্যের আমদানি শুল্ক বা ইম্পোর্ট ডিউটি (Import Duty reduction) কমালেই জিসিপত্রের দাম কমতে থাকে ৷

Leave A Reply

Your email address will not be published.