অসম আদিত্য - দেশ-জাতিৰ অতন্দ্ৰ প্ৰহৰী
শেহতীয়া খবৰ
পাকিস্তানৰ বিখ্যাত আনাৰকলি বজাৰ অঞ্চলত বোমা বিস্ফোৰণ-পদ্মশ্ৰী উদ্ধাৱ কুমাৰ ভৰালীৰ আত্মসমৰ্পণ-গণৰাজ্য দিৱস সমাগত, খাদী বৰ্ডৰ একাংশ কৰ্মচাৰী ব্যস্ত হৈ পৰিছে ৰাষ্ট্ৰীয় পতাকা সাজি উলিওৱাত-অসম চৰকাৰে কোভিড আক্ৰান্তৰ বাবে সংশোধিত গাইড লাইন জাৰি কৰিছে-অসম চৰকাৰে কোভিড আক্ৰান্তৰ বাবে সংশোধিত গাইড লাইন জাৰি কৰিছে-চীনে কৃত্ৰিম সূৰ্যৰ পিছত এতিয়া নকল চন্দ্ৰ (Artificial Moon) নিৰ্মাণ কৰিছে-বুজন সংখ্যক লোকক এতিয়া বিচাৰি ভেকচিন দিয়াটো হৈ পৰিছে স্বাস্থ্য বিভাগৰ কাৰণে ডাঙৰ প্ৰত্যাহ্বান-বুজন সংখ্যক লোকক এতিয়া বিচাৰি ভেকচিন দিয়াটো হৈ পৰিছে স্বাস্থ্য বিভাগৰ কাৰণে ডাঙৰ প্ৰত্যাহ্বান-দেশত কোৰোণাত আক্ৰান্তৰ সংখ্যা দিনক দিনে বৃদ্ধি পাইছে-নামনিৰ ৰে’ল যোগাযোগৰ ক্ষেত্ৰত আজি এক ঐতিহাসিক দিন

দেশে ফের বাড়ল করোনায় (Covid 19) দৈনিক সংক্রমণের গ্রাফ

0

দেশে ফের বাড়ল করোনায় (Covid 19) দৈনিক সংক্রমণের গ্রাফ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনায় (Coronavirus) আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ লাখ ছুঁই ছুঁই। 

পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনায় (Covid Cases in India) আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৯৪ হাজার ৭২০ জন। মঙ্গলবারের থেকে বুধবারে সংক্রামিতের সংখ্যা বেড়েছে সাড়ে ২৬ হাজারেরও কিছু বেশি। দৈনিক পজিটিভিটি রেট এখন ১১.০৫ শতাংশ। তবে আশার কথা এটাই যে, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থও হয়ে উঠেছেন বহু মানুষ। ৬০ হাজার ৪০৫ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন গত ২৪ ঘণ্টায়। এই মুহূর্তে দেশে সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যা ৯ লাখ ৫৫ হাজার ৩১৯ জন। 

যদিও গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আবার করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৪৪২ জন। মঙ্গলবারের হিসেবে বুধবারে বেড়েছে মৃতের সংখ্যা। মঙ্গলবারে সংখ্যাটা ছিল ২৭৭। বলতে গেলে সোমবার থেকে দেশে করোনায় মৃত্যুর গ্রাফ উর্ধ্বমুখী। সোমবার কোভিড কোপে প্রাণ হারিয়েছিলেন ১৫০ জন। 

অন্যদিকে, ওমিক্রনে (Omicron) সংক্রামিতের সংখ্যাও বেড়েছে দেশে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে ওমিক্রনে সংক্রামিত হয়েছেন ৪০০ জনেরও বেশি।  ভারতে এখন ওমিক্রন আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৮৬৮ জন। সারা দেশের মধ্যে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা সর্বাধিক সেই মহারাষ্ট্রে। সে রাজ্যে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ১২০০ পার করে গিয়েছে। মোট আক্রান্ত ১,২৪১ জন। তবে সুস্থও হয়ে উঠেছেন ৪৯৯ জন। মহারাষ্ট্রের পরই ওমিক্রন সংক্রমণের নিরিখে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে রাজস্থান। মরুর রাজ্যে করোনার নয়া ভ্যারিয়ান্টে আক্রান্ত হয়েছেন মোট ৬৪৫ জন। দিল্লিতে কিছুটা হলেও রাশ টানা গিয়েছে ওমিক্রন সংক্রমণে। রাজধানী দিল্লি এখন ওমিক্রন সংক্রমণের নিরিখে তৃতীয় স্থানে। দিল্লিতে ওমিক্রন সংক্রামিতের সংখ্যা ৫৪৬ জন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.